Category: শিক্ষা বিষয়ে

0

রসিদপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পিএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্টিত

হিফজুর রহমান তুহিন, কমলগঞ্জ।। কমলগঞ্জ উপজেলার ঐতিহ্যবাহী পতনউষার ইউনিয়নের ৯নং রসিদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কৃতি পিএসসি ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে এক সম্বর্ধনা সভার আয়োজন করা হয়। সভায় বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিও উপস্থিত ছিলেন। মাঠপর্যায়ের গ্রামীণ বিদ্যালয়। ছাত্র-ছাত্রীদের কি দিয়ে অভিনন্দন জানাবে? কি-ই-বা আছে তাদের! অবশেষে সকলে মিলে কৃতি শিশু-কিশোরদের মুখে চকলেট তুলে দেন এবং সুন্দর ভবিষ্যতের আকাঙ্ক্ষায় প্রার্থনা করেন রসিদপুর বায়তুল ইসলাম জামে মসজিদের ইমাম সফিকুর রহমান।

0

মেধাবী রোকেয়ার চার্টার্ড একাউন্টেন্ট হওয়ার স্বপ্ন কি বাস্তবায়িত হবে ?

মৌলভীবাজার অফিস।। গ্রামীণ বাংলাদেশের কমলগঞ্জ উপজেলার উত্তর তিলকপুর গ্রামের রোকেয়া বেগম। দরীদ্র কৃষক কন্যা! গ্রামের শীতল শান্ত পরিবেশে বড় হয়েছেন। এ বছরের এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন। রোকেয়া ৫ম শ্রেণিতেও ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছিল। মনে তার খুব ইচ্ছা চুক্তিকারী হিসাব রক্ষক (চার্টার্ড একাউন্টেন্ট) হবেন। তার আছে অদম্য ইচ্ছা আর দৃঢ় মনোবল। কিন্তু পাহাড়সম বাধা হয়ে দাড়িয়ে আছে পরিবারের দারীদ্র। পরিবারের আয়ের একমাত্র উৎস কৃষিক্ষেত। এ আয় দিয়ে মেয়েকে চার্টার্ড একাউন্টেন্সি পড়ানো দরীদ্র বাবা রফিক মিয়ার পক্ষে কোন অবস্থায়ই সম্ভব নয়। তবে কি রোকেয়ার এতো সাধনার লালিত স্বপ্ন, স্বপ্নই থেকে যাবে?

0

দারুল উলুম ইসলামী স্কুলের গ্রেপ্তারকৃত শিক্ষক ও তার পুত্রকে স্কুলের সকল দায়ীত্ব থেকে বরখাস্ত

লণ্ডন।। লণ্ডন চিজেলহার্স্ট-এর ইসলামী স্কুল। নাম “দারুল উলুম ইসলামী স্কুল”। বাপ-বেটার স্কুল বললে অত্যোক্তি হবে না। বাবা মোস্তাফা মুসা স্কুলের প্রধান শিক্ষক আর পুত্র ইউসুফ মুসা স্কুলের নিরাপত্তার সার্বিক দায়ীত্ব পালন করেন। স্কুলটির ছাত্রসংখ্যা ১৫৫জন কিশোর। তাদের বাবা-মা বছরে ৩০০০ পাউণ্ড হিসেবে বেতন দিয়ে যান। অথচ স্কুলের নামে কোন ব্যাংক হিসাব নেই। সব অর্থ প্রধান শিক্ষকের কাছে নগদ আসে। বিগত দু’টি অফস্টেড পরিদর্শনে স্কুলের ফলাফল শূণ্য। শিক্ষা কর্তৃপক্ষের অভিযোগ স্কুলের নিরাপত্তা টলটলায়মান। কোন ভরসা রাখা যায় না। তার চেয়ে স্কুলটিকে সরকারী খাতা থেকে বাদ দিয়ে বন্ধ করে দেয়াই উত্তম। পুলিশের ধারণা এ বিপুল পরিমান অর্থ মুদ্রাপাচারে ব্যবহার হতো।

0

দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে নিয়ে এমন ভয়ঙ্কর অপকর্ম, বিশ্বাস করতে মন চায় না

রচনার সব শেষের রঙ্গিন শিরোনামগুলো বাংলাদেশের শিক্ষা নিয়ে ইউটিউবের প্রতিবেদন। এগুলো ইউটিউবে প্রচারিত গত ৩দিনের অগণিত ডজন ডজনের কয়েকটি মাত্র। দেশের শিক্ষার গায়েবী জানাজা পড়ার ইউটিউবের এমন প্রচার যে কেউ দেখলে মাথা গুলিয়ে যাবার মত অবস্থা হবে। খবরগুলো ছোট-বড় বিভিন্ন টিভি চ্যানেলের দেয়া। সংবাদপত্রও এমন মাথা গুলানো খবর পরিবেশন করেছে। এ চিত্র কোনভাবেই কাঙ্ক্ষিত নয়। কোন দেশ বা মানবগুষ্ঠীর শিক্ষাখব্যবস্থাকে দীর্ঘদিনের জন্য আতুর করে রাখার জন্য এ নমুনার কাজই যথেষ্ট। শিরোনাম থেকে স্পষ্টই বুঝা যায় বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে পরিকল্পিতভাবে ধ্বংসের লক্ষ্যে এমন কাজ চালিত হচ্ছে।