আবারও মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনা। ঝরে গেল তাজা দু’টি প্রাণ

মৌলভীবাজার অফিস।। অটোরিক্সা চালক তারেক আহমদ, বয়স আর কেমন ছিল। মাত্র বিশ বছর। আর এই বিশ বছর বয়সেই ভবলীলা তার সাঙ্গ করে দিয়ে গেছে ঘাতক বাস। কত আশায় বুক বেঁধে অটোরিক্সা নিয়ে বের হয়েছিলেন। যাত্রী নিয়ে এসেছিলেন মৌলভীবাজারে দু’টো টাকা রুজগারের আশায়। নিষ্কলুষ সে বাসনার পেছনে কত স্বপ্ন ছিল, সব কিছু চুরমার করে দিয়ে জীবন নিয়ে ঘরে আর ফিরতে দেয়নি ঘাতক বাস। একই ভাগ্যবরণ করতে হয়েছে সব্জিবিক্রেতা নেপুর মিয়াকে(৫০)। ঘাতক বাস তাদের ক্ষুধে অটোরিক্সাকে দুমড়ে-মুচড়ে তাদের দু’জনের প্রাণ হরণ করেছে। আমরা না জানলেও ভালকরেই বুঝি তারেক আহমদ ও নেপুর মিয়ার বাড়ীতে এখন কান্নার রোলের সাথে মা-বাবা-জায়া-পুত্র পরিবারের মাথা চাপড়ানো চলছে। তারেক আর নেপুর মিয়া আর কোনদিন ফিরে আসবে না। পরিবার দু’টির জন্য এ ক্ষতি সত্যিকার অর্থেই অপূরণীয়। তাদের কোনরূপ সান্তনা দেবার কেউ কি আছে? রাষ্ট্রকি তাদের এ অপূরণীয় ক্ষতির খেসারতে এগিয়ে আসবে? এমন প্রশ্ন খুবই স্বাভাবিক।